Saturday, 04 February 2023

স্তিমিত হয়ে এসেছে চীনের কোভিড বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

Editor: CanBangla
Tuesday, 29 November 2022 167

অনলাইন ডেস্ক : কোভিড বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে চীনের সপ্তাহব্যাপী বিক্ষোভ প্রায় স্তিমিত হয়ে এসেছে। কর্তৃপক্ষের শক্ত দমনের ফলেই এমনটি হয়েছে বলে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে বিবিসি। বিভিন্ন শহরে অধিক পুলিশ উপস্থিতির খবর পাওয়া গেছে। এতে কিছু সমাবেশ ভঙ্গ হয় এবং কিছু বাস্তবায়িত হতে ব্যর্থ হয়। জনগণকে জিজ্ঞাসাবাদ এবং ফোন তল্লাশির খবর পাওয়া গেছে।

কিন্তু প্রবাসী চীনারা বিশ্বের অন্তত এক ডজন শহরে প্রতিবাদ অব্যাহত রেখেছে। বৃহস্পতিবার পশ্চিম চীনের উরুমকিতে একটি টাওয়ার ব্লকের অগ্নিকাণ্ডে ১০ জন নিহতে গত সপ্তাহান্তে বিক্ষোভ বেড়েছে।  

এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কোভিড বিধিনিষেধকে দায়ী করেছে চীনা নাগরিকরা। কিন্তু স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে বিরোধিতা করেছে। ফলে কয়েকদিন ধরে রাস্তায় হাজার হাজার মানুষ নেমেছে। তারা কোভিড লকডাউনের অবসান দাবি করেন। অনেকে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর পদত্যাগ দাবি করেন।

কিন্তু সোমবার কর্মকর্তারা সমাবেশ কেন্দ্র ঘেরাও করার কারণে বেইজিংয়ে পরিকল্পিত বিক্ষোভ সম্ভব হয়নি। সাংহাইতে বিক্ষোভের প্রধান গমনপথ বরাবর বড় প্রতিবন্ধক তৈরি করা হয়েছিল এবং পুলিশ বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছিল।

মঙ্গলবার সকালে সাংহাই ও বেইজিং এর বিভিন্ন এলাকায় পুলিশ টহল দিতে দেখা যায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অ্যাপ টেলিগ্রামের কিছু গ্রুপ পরামর্শ দেয় যে জনগণের আবার একত্রিত হওয়া উচিত।

বিবিসির যাচাইকৃত সোশ্যাল মিডিয়া ফুটেজ অনুসারে বলা হয়,  সোমবার রাতে দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর হ্যাংঝোতে একটি ছোট আন্দোলনে বিক্ষোভকারীদের গ্রেপ্তার করা হয় এবং দ্রুত বিক্ষোভ বন্ধ করা হয়।

হংকংয়ে কয়েক ডজন বিক্ষোভকারী শহরের কেন্দ্রস্থলে এবং হংকংয়ের চীনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে একত্রিত হয়েছিল। মেইনল্যান্ড চায়নার বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে সংহতি প্রদর্শনে তারা একত্রিত হন।  

অনেকে লন্ডন, প্যারিস এবং টোকিওর মতো বিশ্বের প্রধান শহরগুলোতে চীনা দূতাবাস এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর বাইরেও একত্রিত হন। 

একজন বিশেষজ্ঞ পরামর্শ দেন, স্থানীয় বিক্ষোভ শিগগিরই যেকোনো সময় শেষ হবার সম্ভাবনা নেই। এটি জোয়ার ভাটার মতো। কারণ মানুষকে নিয়ন্ত্রিত উপায়ে রাস্তায় ডাকা হয়নি। তারা সোশ্যাল মিডিয়ায় সক্রিয় এবং রাস্তায়ও সক্রিয়। 

এদিকে চীনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্ল্যাটফর্মগুলোতে সেন্সরশিপ জোরদার করা হয়েছে। লাখ লাখ পোস্ট অনুসন্ধান ফলাফল থেকে ফিল্টার করা হয়েছে। গণমাধ্যমগুলো কোভিড নিয়ে সংবাদের পরিবর্তে বিশ্বকাপ এবং চীনের মহাকাশ অর্জন সম্পর্কে সংবাদ প্রচার করছে।