Wednesday, 30 November 2022

কলড্রপের ক্ষতিপূরণ বাড়ছে ১ অক্টোবর থেকে

Editor: CanBangla
Monday, 26 September 2022 81

অনলাইন ডেস্ক : মোবাইল ফোনে কলড্রপের ক্ষতিপূরণ বাড়ছে। আগামী ১ অক্টোবর থেকে প্রতিদিন প্রথম ও দ্বিতীয় কলড্রপের ক্ষেত্রে প্রতিটি কলড্রপের জন্য ৩০ সেকেন্ড ক্ষতিপূরণ পাবে গ্রাহক। আর তৃতীয় হতে সপ্তম কলড্রপের ক্ষেত্রে প্রতিটি কলড্রপের জন্য ৪০ সেকেন্ড ক্ষতিপূরণ মিলবে। এ ক্ষতিপূরণ শুধু অননেট কলের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। 

এ সংক্রান্ত নতুন নির্দেশনা জারি করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। আজ সোমবার বিটিআরসির সম্মেলন কক্ষে কলড্রপ নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন এই নির্দেশনার কথা জানায় নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন। 

এতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংযুক্ত ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মো. খলিলুর রহমান। 

কলড্রপ নিয়ে বিশদ তথ্য উপস্থাপন করেন বিটিআরসির সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিসেস বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাসিম পারভেজ। সম্মেলনে বিটিআরসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ও মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বর্তমানে কোনো অপারেটরই প্রথম কলড্রপের জন্য কোনো ক্ষতিপূরণ দেয় না। বিটিআরসির তথ্য বলছে, গ্রাহকের যত কলড্রপ হতো তার ৬৫ শতাংশই হয় প্রথম কলড্রপ। এতে অধিকাংশ কলড্রপের ক্ষতিপূরণ পায় না গ্রাহক। বর্তমানে গ্রামীণফোন ও রবি ৩য় থেকে ৭ম কলড্রপের ক্ষেত্রে প্রতি কলড্রপে এক মিনিট করে ফেরত দেয়। আর বাংলালিংক দেয় ২য় থেকে ৬ষ্ঠ কলড্রপ পর্যন্ত।

নতুন নির্দেশনায়, কলড্রপ নিয়ে সব মোবাইল ফোন অপারেটরদের জন্য অভিন্ন ইউএসএসডি কোড *১২১*৭৬৫# চালু হয়েছে। এই নম্বরে ডায়াল করে একজন গ্রাহক জানতে পারবেন তার দৈনিক, সপ্তাহিক বা মাসিক অননেট কলড্রপের পরিমাণ।

কলড্রপের ফলে পাওয়া কল মিনিট পরবর্তী দিনের প্রথম কল হতে ব্যবহারযোগ্য হবে। ফেরত পাওয়া মিনিট পুরোপুরি ব্যবহার শেষ হওয়ার আগে গ্রাহকের অ্যাকাউন্ট হতে কোনো টাকা কাটা যাবে না। এছাড়া কলড্রপের জন্য ফেরত দেওয়া টকটাইমের বিষয়ে গ্রাহককে এসএমএস করে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে জানাতে হবে। 

অফনেট কলড্রপের ক্ষতিপূরণের বিষয়ে জানতে চাইলে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, অননেট কলড্রপের ক্ষতিপূরণও যেন গ্রাহক পেতে পারে সেজন্য কাজ করছে বিটিআরসি। অফনেট কলড্রপের ক্ষেত্রে বাণিজ্যিক বিদ্যুৎ চলে যাওয়া, এনটিটিএন ফাইবার কাটায় নেটওয়ার্ক কাটা, ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক মানসম্মত না হওয়া, যন্ত্রপাতি অচল হওয়া, আইসিএক্স সুইচ ক্যাপাসিটিসহ বেশ কিছু বিষয় রয়েছে। তাই একটু সময় লাগছে। এজন্য বিটিআরসি ‘টেলিকম মনিটরিং সিস্টেম’ বা টিএমএস প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। যেখানে অফনেট কলড্রপের কারণ শনাক্ত করা সহজ হবে এবং দায়ী অপারেটরকে দায়বদ্ধতার আওতায় আনা যাবে।